ল্যাপটপ বলতে কি বুঝায় ল্যাপটপ কি এবং এর কাজ ও ইতিহাস

আজকে এই পোস্ট থেকে যা যা জানা যাবে

  1.  ল্যাপটপ কাকে বলে কি
  2.  ল্যাপটপ এর কাজ কি কি
  3.  ল্যাপটপ আর ডেস্কটপ এর পার্থক্য 
  4. নোটবুক আর  ল্যাপটপ এর মিল অমিল 
  5.  ল্যাপটপ এর ইতিহাস 

 ল্যাপটপ কাকে বলে? আসুন জানি উইকি কি বলে

“একটি ল্যাপটপ বা একটি নোটবুক হল বহনযোগ্য ব্যক্তিগত কম্পিউটার যা দেখতে ছোট আকৃতির এবং ভ্রমণ উপযোগী।
ল্যাপটপ এবং নোটবুক উভয়কে পূর্বে ভিন্ন ধরা হত কিন্তু বর্তমানে তা মানা হয় না। ল্যাপটপ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয় যেমন কর্মক্ষেত্রে, শিক্ষায় এবং ব্যক্তিগত বিনোদনের কাজে।


একটি ল্যাপটপ কম্পিউটারে ডেস্কটপ কম্পিউটারের সমস্ত উপাদান এবং সকল ইনপুটগুলোকে একত্রিত করা হয়। যেখানে শুধুমাত্র একটি যন্ত্রে প্রদর্শনী, স্পিকার, কিবোর্ড এবং টাচপ্যাড বা ট্র্যাকপ্যাড থাকে। বর্তমানের বেশিরভাগ ল্যাপটপের সঙ্গেই থাকে ওয়েবক্যাম এবং মাইক্রোফোন। একটি ল্যাপটপ চালানো যায় ব্যাটারি এবং এসি এডাপ্টারের মাধ্যমে বিদ্যুতের সরাসরি সংযোগে। ল্যাপটপের মডেল, প্রকারভেদ ও উৎপাদনের উপর হার্ডওয়্যারের ভিন্নতা লক্ষ্য করা যায়।


বহনযোগ্য কম্পিউটারগুলোকে পূর্বে ছোট একক বাজার হিসেবে গন্য করা হত এবং এগুলো বিশেষ ধরনের প্রায়োগিগ কাজে ব্যবহার করা হত যেমন সৈনিকদের কাজে, হিসাববিজ্ঞানেরর কাজে, বিক্রয় প্রতিনিধিদের প্রয়োজনে ইত্যাদি। এগুলো পরে আধুনিক ল্যাপটপে পরিণত হয়। এগুলো আকারে আরো ছোট, পাতলা, সস্তা, হালকা এবং উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন হতে থাকে ফলে বহুমুখী কাজে এদের ব্যবহার বৃদ্ধি পায়।”

 ল্যাপটপ এর কাজ কি কি?

একটা ডেস্কটপ কম্পিউটার যেসব যতসব কাজ করতে পারে একটি  ল্যাপটপ ও সেসব কাজ করতে পারে। ডেস্কটপ আর  ল্যাপটপ এর কাজের মধ্যে মৌলিক কোন পার্থক্য নাই। বাহ্যিক গঠন ছাড়া।  ল্যাপটপ দিয়ে আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইনের কাজ, গেম খেলা, ভিডিও দেখা, ভিডিও এডিট করা, নেট ব্রাউজ করা, অফিসের কাজ করা সবই করতে পারবেন।  

 ল্যাপটপ ডেস্কটপ এদের মধ্যে পার্থক্য কি ? 

ঐ যে বললাম কাজের দিক থেকে এদের মৌলিক কোন পার্থক্য নাই।  ল্যাপটপ আর ডেস্ক টপ কম্পিউটারের পার্থক্য হলো এদের বাইরের আকার আকৃতি তে।  ল্যাপটপ ছোট আর এর সব কিছু একটা বক্স এর মধ্যে থাকে অন্য দিকে ডেস্কটপ আকারে বড়, মনিটর সিপিউ, এসব আলাদা আলাদা থাকে।  ল্যাপটপ সহজে এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় বহন করা যায় কিন্তু ডেস্কটপ সেভাবে বহন ওরা যায় না। 

 ল্যাপটপ কম্পিউটারের ইতিহাস 

DynaBook
ল্যাপটপ  এর যাত্রার শুরু বলা চলে ডাইনাবুক এর পরিকল্পনা থেকে। এলান কে নামের একজন ডাইনাবুকের আইডিয়া শেয়ার করেন যার ওজন হবে এক কেজির নিচে এবং তার মুক্ত।যেমন তা আজকে আমরা ল্যাপটপ  এর ক্ষেত্রে দেখে থাকি।
কিন্তু সে সময় তার সেই আইডিয়া অনুযায়ী যন্ত্রপাতি তৈরি করার টেকনোলজি তখন ছিলো না বিধায় ডাইনাবুক বাস্তবের মুখ দেখেনি। 

laptop history bangla

Portable Teletype : আজ থেকে ৪০ বছর আগে বহন যোগ্য কম্পিউটার বাস্তব ছিলো না কিন্তু এমন কিছুর  আইডিয়া ছিলো। Teletype Corporation KSR-33. এর Portable Teletype হলো একটি ৩০ কেজি ওজনের কম্পিউটার যেটা এক জায়গা থেকে আরেক জায়গায় বহন করা জেতো। 

old laptop photo

IBM 5100

১৯৭৫ সালে আইবিএম কোম্পানি এই কম্পিউটার আনে যা একটি ব্যাগ এর মধ্যে আটানো যায়। ল্যাপটপ এর ইতিহাসে এটিও একটি বিশেষ অবদান।

first age laptop photo bangla

GRID Compass: ১৯৭৯ সালে Grid System Corporation এর William Moggridge পোর্টেবল কম্পিউটার তৈরি করে।এই কম্পিউটার এর মেমরি ছিলো ৩৪০ কেবি এবং নাসা তখন প্রতি কম্পিউটার ৮০০ ডলারে কিনেছিলো তাদের মহাকাশ গবেষণার জন্য। ( আজকে আমরা  2097152  কেবির মোবাইল দিয়ে লুডু খেলি!!!)

Osborne 1: ১৯৮১ সালে Osborne কোম্পানি এটিকে বাজারে আনে। এর মূল্য ছিলো ১৫০০ ডলারের বেশি। এই কম্পিউটারের ওজন ছিলো ১০ কেজি।

osborne 1 computer pic

Grid Compass 1100 : মূলত নাসার জন্য তৈরি করা হলেও ১৯৮২ সালে সবার জন্য উন্মুক্ত করা হয়। এটি আজকের ল্যাপটপ এর মত ভাজ করা সুবিধা যুক্ত কম্পিউটার। আজকের মত আধুনিক না তবে ভাজ করার সুবিধা ছিলো।এর মেমরি ছিলো ৩৪০ কেবি। 

80s laptop computer

Apple IIc model

1984 সালে অ্যাপল অ্যাপল IIc মডেলটি প্রবর্তন করে। অ্যাপল IIc একটি নোটবুক – কম্পিউটারের আকারের , তবে আসল ল্যাপটপ নয়।

  1. এটিতে একটি 65C02 মাইক্রোপ্রসেসর,
  2. 128 কিলোবাইট মেমরি এবং
  3. একটি অভ্যন্তরীণ 5.25-ইঞ্চি ফ্লপি ড্রাইভ,
  4. দুটি সিরিয়াল পোর্ট,
  5. মাউস পোর্ট,
  6. মডেম কার্ড,
  7. বহিরাগত পাওয়ার সরবরাহ রয়েছে

এবং ভাঁজ করা যায়। কম্পিউটার নিজে ওজনের 10 থেকে 12 পাউন্ড (5 কেজি), তবে মনিটরটি কিছুটা ভারী। অ্যাপল আইসিটিতে একটি 9 ইঞ্চি মনোক্রোম মনিটর এবং এলসিডি প্যানেল রয়েছে।
কম্পিউটার / এলসিডি প্যানেলের সমন্বয় এটিকে একটি পোর্টেবল কম্পিউটারে পরিণত করেছে। অ্যাপল IIc হোম এবং শিক্ষামূলক ক্ষেত্রে বাজারজাত করা হয়, এবং প্রায় পাঁচ বছর ধরে সাফল্য অর্জন করে। আইবিএমের মতো অন্যান্য সংস্থাগুলি পরের বছর অন্যান্য ল্যাপটপ চালু করেছিল। প্রথম বাণিজ্যিকভাবে প্রকাশিত পোর্টেবল কম্পিউটার হ’ল আইবিএম পিসি, অ্যাপল IIC এর বিপরীতে।
বৈশিষ্ট্যগুলি: মাইক্রোপ্রসেসর 8088,

  • 256 কিলোবাইট মেমরি,
  • দুটি 3.5-ইঞ্চি (8.9 সেমি) ফ্লপি ড্রাইভ,
  • একটি এলসিডি ডিসপ্লে,
  • সমান্তরাল এবং প্রিন্টার সিরিয়াল পোর্ট,
  • অভ্যন্তরীণ মডেমের জন্য স্থান এ
  • বং এএ বেসিক সফ্টওয়্যারটিতে ওয়ার্ড প্রসেসিং,
  • ক্যালেন্ডার,
  • অ্যাড্রেস বই
  • এবং ক্যালকুলেটর সফ্টওয়্যার অন্তর্ভুক্ত রয়েছে ।
old apple computer

IBM PC Convertible

1985 সালে, অনেক প্রযুক্তি পর্যবেক্ষক ল্যাপটপের ধারণাটি দীর্ঘস্থায়ী হবে কিনা তা ভেবে ভেবেছিলেন। নিউইয়র্ক টাইমসের একটি নিবন্ধে, এরিক স্যান্ডবার্গ-ডিমেন্ট প্রশ্ন করেছিলেন “একটি ল্যাপটপের সাথে কী হচ্ছে?” তিনি 1983 থেকে 1985 পর্যন্ত কমডেক্স কম্পিউটার প্রদর্শনীতে ল্যাপটপের ব্যবহারের সংখ্যা হ্রাস দেখেছিলেন।তবে 1986 সালে আইবিএম বাজারে আইবিএম পিসি কনভার্টেবল চালু করে। 1995 ডলার মূল্যের এই ল্যাপটপটি বাজারে প্রথম সফল ল্যাপটপ। এটি একটি প্রথম আইবিএম মেশিন যা 3.5 “ফ্লপি ডিস্কের জন্য একটি ডিস্ক ড্রাইভ ব্যবহার করেছিল।
এটির ওজন 5.5 কেজি এবং 256KB মেমরি রয়েছে। দুটি ডিস্ক ড্রাইভ, এলসিডি ডিসপ্লে স্ক্রিন, প্রিন্টারের জন্য সমান্তরাল বন্দর এবং বেসিক সফ্টওয়্যার রয়েছে।

Leave a Comment

Copy link
Powered by Social Snap