বাংলাদেশের সকল ই কমার্স সাইটের নামের তালিকা এবং ওয়েবসাইট লিঙ্কঃ দেশের প্রথম ই কমার্স সাইটের নাম

১. দারাজ – বাংলাদেশের সেরা ই কমার্স সাইট

দারাজ কে নতুন করে পরিচিত করে দেওয়ার প্রয়োজন আছে কি? যারা অনলাইনে কেনাকাটা করেন তাদের কাছে আগে থেকেই পরিচিত দারাজ। তাছাড়া তাদের মার্কেটিং  এর কারনে অনেক নন বায়ারও তাদের সম্পর্কে জানে। যদিও আমি শিউর না তবে আমার ধারনে বেচাবিক্রির দিক থেকে দারাজ বাংলাদেশের টপ ই কমার্স ওয়েব সাইট। 

দারাজের মানঃ দারাজের ডেলিভারি চার্জ এখন অনেক বেশি। একদম সর্ব নিম্ন ডেলিভারি চার্জ ৭০ টাকা।  এছাড়া অনেক সময় ভুল প্রোডাক্ট দেওয়া, ড্যামেজ প্রোডাক্ট এসবের ব্যাপারে অনেক ক্রেতায় অভিযোগ জানিয়ে থাকে নিয়মিত। 

২. ই ভ্যালি – প্রতারনা করার দায়ে জেলে আছে রাসেল ভাই

যদিও ই ভ্যালি এখন আপাতত ক্লোজ আছে তবে অনেকেই ই ভ্যালি থেকে বেশ ভালোই কেনাকাটা করেছে। ই ভ্যালির প্রতারনা মুলক পলিসিতে পড়ে অনেক ক্রেতা যেমন লস খেয়েছে তেমন অনেকেই লাভ ও তুলে নিয়েছে। আসলে পঞ্জি স্কিম কখনই কারো জন্য ভালো না। 

যে পঞ্জি স্কিমের মাধ্যমে কোটিপতি হবে সেও এক সময় ধরা খেয়ে যায় আর যারা এই স্কিমের লোভে ফাদে পড়ে তারা তো ধরা খাই ই। 

ই কমার্স সাইট বাংলাদেশ

৩. চালদাল ডট কম – মাসিক বাজার করার অনলাইন শপ

চাল ডাল ডট কম ই কমার্স সাইটের অতিরিক্ত এসএমএস মার্কেটিং নিয়ে অনলাইনে অনেকে অভিযোগ করে থাকে। আমি নিজে কখনো এদের থেকে কোন সার্ভিস/ প্রোডাক্ট কিনিনি তাই এদের সার্ভিস কেমন তা জানি না। 

তবে মার্কেটিং এর বাজেট দেখে বুঝা যায় ভালো মানের ই কমার্স। গলির চিপার ওয়েব সাইট না! 

৪. Ajker Deal  – বাংলাদেশের ই কমার্স ওয়েবসাইট

আজকের ডিল হলো চাল ডালের মত তবে চালডালের মূল প্রোডাক্ট চাল ডাল চা পাতা রিলেটেড আর আজকের ডিল দারাজের মত বিভিন্ন ক্যাটাগরির প্রোডাক্ট সেল করে। 

আমি কিনিনি কখনো তাই বানিয়ে বানিয়ে ভালো বা খারাপ কিছুই লিখছি না। 

৫. pickaboo.com

পিকাবো নামে বাংলাদেশে কোন ই কমার্স সাইট আছে সেটাই আগে জানতাম না। এই নামের সাথে মিল আছে এমন কোন বিদেশি ই কমার্স সাইটের নাম আছে আর আমি সেটার জন্য ভাবতাম এটাও আসলে বাইরের কোন দেশের ই কমার্স ওয়েব সাইট। আলিবাবা আলি এক্সপ্রেসের মত।

তবে আসলে এটি বাংলাদেশের সাইট। ২০১৬ সালে পিকাবো যাত্রা শুরু করে। 

৬. Bagdoom.com 

আমি এই সাইটের প্রবেশ করতে চেষ্টা করেও প্রবেশ করতে পারিনি তাই কিছু জানাতে পারছি না। এই সাইট এখনো আছে নাকি ই ভ্যালির মত উড়ে গেছে তাও জানি না! 

৭. bikroy.com 

বিক্রয় ডট কম যখন যাত্রা শুরু করে তখন বেশ উড়াধুড়া বিজ্ঞাপন দিয়ে বেশ পরিচিতি পেয়েছিলো। এখন আমার মতে কিছুটা ঝিমাচ্ছে এই সাইট। এখন ফেসবুকের বিভিন্ন গ্রুপে নতুন পুরাতন প্রোডাক্ট কেনা বেচা করা যায় আরো সহজে এজন্য হইতো মানুষ এখন আর বিক্রয় ডট কমে তেমন আগ্রহি না।

আর বিক্রয় ডট কম কিন্তু দারাজের মত ই কমার্স সাইট না। এই সাইটে যে কেউ নতুন পুরাতন বিভিন্ন প্রোডাক্ট সেল/ বায় করতে পারে। এটি আসলে E bay এর মত। 

৮. রকমারি  –  অনলাইন থেকে বই কিনুন সহজে

বই বিক্রির জন্য বাংলাদেশের অন্যতম একটি ই কমার্স ওয়েবসাইট হলো রকমারি। যদি আমার কাছে বই কেনার জন্য রকমারির চেয়ে Wafilife কেই ভালো মনে হয়েছে। তাছাড়া রকমারির ব্যাপারে নানান অভিযোগ ও আছে! তাই আমার সাজেশন থাকবে বই কিনতে ওয়াফি লাইফ ঘুরে আসুন। 

৯. ফুড পান্ডা – অনলাইন থেকে খাবার অর্ডার করুন 

রেডিমেড খাবার সল্প সময়ের মধ্যে ডেলিভারি পেতে ফুড পান্ডাকে ডাকুন। বিভিন্ন কারনে মানুষ এখন অনেক বেশি খাবার রসিক হয়ে গেছে। হইতো ইউটিউবের নানা রকম খাবারের ভিডিও দেখে দেখে সেসব খাবার খাওয়ার ইচ্ছা তৈরি হয় সেটা থেকেই এমন হচ্ছে। 

তবে কারন যায় হোক না কেন অনেক ধরনের হোটেল, রেস্টুরেন্ট কিংবা ঘরোয়া খাবার দ্রুত ডেলিভারি সার্ভিস প্রদান করে ফুড পান্ডা। 

ফুড পান্ডা কিন্তু নিজেরা কোন ফুড তৈরি করে না বরং বিভিন্ন হোটেলের সাথে এদের চুক্তি থাকে, আপনি কোন হোটেল সিলেক্ট করে কোন খাবার অর্ডার করলে ফুড পান্ডার ডেলিভারি ম্যান সেই হোটেল থেকে খাবার টি আপনার কাছে ডেলিভারি দিবে। এটাই ওদের বিজনেস।

১০. Khaas Food – স্বাস্থ্যকর খাবারের ই কমার্স সাইট

বিভিন্ন হারবাল প্রোডাক্ট, ওষুধী খাবার, কালো জিরা, মধু, তেল, খেজুর , বাদাম, ড্রাই ফ্রুটস এর মত স্বাস্থ্যকর প্রোডাক্ট পেতে খাস ফুডকে বিলিভ করতে পারেন। 

এদের সার্ভিস ও প্রোডাক্ট দুইটাই ভালো। আপনি কিনে চেক করতে পারেন। যদি কোন ভুল অয়ান তাহলে আমাদের জানাবেন। আমরা আমাদের লেখা পরিবর্তন করে দিবো। 

১১. ReshmiZone – ফেসবুক ভিত্তিক অনলাইন শপ 

ফেসবুক ভিত্তিক সেলিং সার্ভিস। 

অনেকে আছে অনলাইন থেকে কিছু কেনার জন্য কোন ওয়েব সাইটে একাউন্ট তৈরি করা ভ্যারিফিকেশন করার ঝামেলায় যেতে চাই না। 

তাদের জন্য ফেসবুক ভিত্তিক রেশমি জোন উপকারি হতে পারে। আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্ট থেকেই বিভিন্ন চাইনিজ আইটেম, গিফট আইটেম, মেয়েদের ড্রেস, কিচেন আইটেম কিনতে পারবেন। তাদের বিজনেস খুলনা ভিত্তিক তবে সারা বাংলাদেশে কুরিয়ারে ডেলিভারি দিয়ে থাকে। 

১২. কওমি উদ্যোক্তা – আলেম উলামাদের বিজনেস গ্রুপ

আরেকটি ফেসবুক গ্রুপ কওমি উদ্যোক্তা। বিভিন্ন প্রোডাক্ট বিশেষ করে ইসলামিক প্রোডাক্ট পেতে এই গ্রুপে ঘুরে আসতে পারেন। এই গ্রুপের অধিকাংশ বিক্রেতা কওমি  আলেম/ ছাত্র।

জায়নামাজ, টুপি, খেজুর, মধু ইত্যাদি পেতে গ্রুপটি দেখতে পারেন। 

১৩. Othoba.com 

Othoba.com হল একটি পরিষেবা ভিত্তিক ই-কমার্স ব্যবসা যা আপনাকে মানসম্পন্ন পণ্য এবং বিশ্বমানের গ্রাহক সহায়তার মাধ্যমে ঘরে বসেই আপনার শোপাহলিক মনোভাব প্রকাশ করার ক্ষমতা দেয়।


Othoba.com-এ, আমরা আপনার ব্যস্ত জীবনের চাহিদা মেটাতে ইন্টারনেটের শক্তিকে সর্বোচ্চ শিখরে ব্যবহার করার চেষ্টা করি।


আমরা এখন এবং এখনও সমগ্র বাংলাদেশ কভার করি, বাংলাদেশের বাইরে থেকে যে কেউ বাংলাদেশী শিপিং ঠিকানা প্রদান করে অনলাইনে পণ্য ক্রয় করতে পারে। আমাদের কাছ থেকে সেরা কেনাকাটার অভিজ্ঞতা নিতে আরামদায়ক হন।

এই পোস্টের বিষয়বস্তু সমূহ

  1. বাংলাদেশের ই কমার্স সাইট
  2. বাংলাদেশের প্রথম ই কমার্স সাইট
  3. ই কমার্স সাইটের নাম
  4. বাংলাদেশের প্রথম ই কমার্স সাইট কোনটি
  5. ই কমার্স সাইট বাংলাদেশ
  6. বাংলা ই কমার্স সাইট নাম
  7. ই কমার্স সাইট তৈরি 
  8. ই কমার্স বিজনেস করার আগে কিছু টিপস

১৪. সহজ ডট কম

2014 সালে আমাদের যাত্রা শুরু করেছি একটি লক্ষ্য মাথায় নিয়ে- জীবনকে সহজ করার জন্য! একটি প্রযুক্তি-প্রথম কোম্পানি হিসেবে, আমরা বাংলাদেশি জনগণের দৈনন্দিন চ্যালেঞ্জের জন্য প্রযুক্তি-চালিত সমাধান তৈরি করি। বাংলাদেশের ট্রাভেল ইন্ডাস্ট্রির পথিকৃত শাহোজ এখন দেশের সবচেয়ে বড় অনলাইন টিকিটের গন্তব্য। আমরা গ্রাহকদের প্রথমে রাখি এবং তাদের শত শত অপারেটর এবং রুট থেকে বেছে নেওয়ার স্বাধীনতা দিয়ে তাদের সুবিধা দিই, দামের তুলনা করি, সেরা ডিল এবং সুরক্ষা অফার করি- সব কিছুর মধ্যেই এবং তাদের ফোনে মাত্র কয়েকটি ট্যাপ দিয়ে। ( সহজের নিজস্ব বক্তব্য এখানে কপি করে দিয়েছি তাই প্রশংসা বেশি দেখতে পাচ্ছেন!) 

১৫. ক্লিক বিডি

ClickBD.com বাংলাদেশে প্রথম ই-কমার্স পোর্টাল হিসেবে 14 এপ্রিল, 2005 সালে তার কার্যক্রম শুরু করে। ক্লিকবিডি একটি অনলাইন মার্কেটপ্লেস যেখানে যে কেউ প্রায় যেকোনো কিছু বিক্রি বা কিনতে পারে। 

সাইটটিতে ব্যবহারকারীদের একটি শক্তিশালী এবং ক্রমবর্ধমান সম্প্রদায় রয়েছে যারা ইলেকট্রনিক্স, ক্যামেরা, ফোন, কম্পিউটার, সিডি, মোবাইল, ফ্যাশন আনুষাঙ্গিক, সঙ্গীত এবং ভ্রমণ সহ বিস্তৃত আইটেম বিভাগে ব্যবসা করে। 

একটি বিশ্বমানের প্রযুক্তি পরিকাঠামোর মাধ্যমে ClickBD বাংলাদেশের ক্রমাগত প্রসারিত অনলাইন সম্প্রদায়ের জন্য ই-কমার্সকে সক্ষম ও সহজ করে। অন্য যেকোন বাংলাদেশী সাইটের তুলনায় ক্লিকবিডিতে লোকেরা বেশি সময় ব্যয় করে, এটিকে দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সাইট করে তোলে। 

ক্লিকবিডি তরুণ প্রজন্মকে ইন্টারনেটের শক্তি ব্যবহার করে পণ্য বিক্রি করে অর্থ উপার্জন করতে উৎসাহিত করেছে। ক্লিকবিডি এমন অনেক লোককে সাহায্য করতে পেরে গর্বিত যারা সফল অনলাইন ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করে যারা এটি থেকে জীবিকা নির্বাহ করে।

2011 সালে, ClickBD তার শ্রেণীবদ্ধ পরিষেবার পাশাপাশি অনলাইন স্টোর চালু করেছে, ব্যবহারকারীদের একটি অনলাইন শপিং মল দেখার এবং সেরা মূল্যে অনলাইন কেনাকাটা করার সুযোগ প্রদান করে। ( এটাও ক্লিক বিডি ওয়েব সাইটের নিজেদের লেখা কপি করে দিয়েছি তাই ঢল পিটানো স্বাদ পাওয়া যাচ্ছে) 

১৬. সিন্ডাবাদ 

House 43, Road 7
Block G Banani
Dhaka 1213, Bangladesh
Contact : support@sindabad.com
Trade Licence No.: 03-085285

সিন্দাবাদ নামের কোন ই কমার্স সাইটের নাম আগে শুনিনি। আজকে পেলাম। হইতো নতুন শুরু করেছে। 

বাংলাদেশের ই কমার্স সাইট নিয়ে তো উপরে টুকটাক আলোচনা করা হয়েছে।ই কমার্স সাইটের নামের তালিকা দেওয়া হয়েছে। 


বাংলাদেশের প্রথম ই কমার্স সাইট কোনটি জানানো হয়েছে। ১৯৯৯ সালের মুন্সিজি ডট কম বাংলাদেশের প্রথম ই কমার্স সাইট।

বাংলা ই কমার্স সাইট নাম – ই কমার্স সাইট বাংলাদেশ

ই কমার্স সাইটের জন্য নাম খুজে পেতে অনলাইনে Name Generator ওয়েবসাইট আছে সেগুলো ইউজ করে আপনার সাইটের জন্য নাম খুজে পেতে পারেন।

আর বাংলাদেশের বিভিন্ন ই কমার্স ওয়েব সাইটের নাম খুজে থাকলে সেটা তো আমরা ইতিমধ্যে উপরে লিখে দিয়েছিই সেটা দেখে নিন। 

ই কমার্স সাইট তৈরি 

ই কমার্স সাইট তৈরির জন্য আপনি ২টি পদ্ধতি ফলো করতে পারেন। ওয়ার্ড প্রেসের ই কমার্স থিম প্লাগিন ইউজ করে আপনি নিজেই ই কমার্স ওয়েব সাইট তৈরি করতে পারবেন।

আর যদি সাইট কে আপনার নিজের মত কাস্টমাইজ করতে চান তাহলে উচিৎ হবে কোন ডেভ্লপার হায়ার করে সাইট তৈরি করে নেওয়া। এক্ষেত্রে খরচ একটু বেশি হবে। 

ই কমার্স নিয়ে কিছু কথা জেনে রাখা ভালো।

 অনেকেই আছে অনলাইনে বিজনেস নাম শুনেই লাফ দেন। কে ক্রেতা কিভাবে তার কাছে সেল করবেন, কোন ক্রেতা কোন প্রোডাক্ট কিনবে কোন প্লাটফরম ইউজ করে অনলাইনে বিজনেস করবেন এসব কিছু না জেনেই সহজে অনলাইনে বিজনেসের লোভে ঝাপ দেন। টাকা খরচ করে কিছুদিন পর দেখেন ইনভেস্ট করা টাকাটাও তোলা যাচ্ছে না অনলাইন বিজনেস থেকে। তখন লস দিয়ে বিজনেস ক্লোজ।

বাংলাদেশে এখন প্রচুর ই কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি হচ্ছে। প্রোডাক্ট থাক বা না থাক সাইট সাজিয়ে বসে আছে এমন সাইটের পরিমান কম না।

আপনাকে বিজনেসে নামার আগে অনলাইন বিজনেস সম্পর্কে ভালো ভাবে লেখাপড়া করতে হবে। 

আপনার প্রোডাক্ট নিয়ে রিসার্চ করতে হবে, আপনি কোন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করবেন , সেই প্রোডাক্টের সম্ভাব্য ক্রেতা কারা এসব নিয়ে আপনাকে ভালো ভাবে জানতে হবে।

এমন অনেক প্রডাক্ট আছে যা কেনার জন্য ক্রেতারা অন্য ওয়েবসাইটে লগিন করার চাইতে ফেসবুকের পেজ/ গ্রুপ থেকে কিনতেই পছন্দ করবে আবার অনেক প্রোডাক্ট আছে যা ফেসবুক থেকে নিতে ভরসা পাবে না, তারা রেপুটেড কোন ই কমার্স সাইট থেকে সেই প্রোডাক্ট কিনতে চাইবে।

আপনাকে বুঝতে হবে আপনি যা সেল করতে চাচ্ছেন তার ক্রেতা কারা, সেই ক্রেতাদের কোথায় পাবেন? তাদের কিভাবে কনভিন্স করবেন এসব আপনাকে জানতে হবে।

একটা ওয়েবসাইট তৈরি করে সেখানে অনেক রকম প্রোডাক্টের ছবি আর দাম দিয়ে রাখলেই আপনার বিজনেস হবে আলিবাবা দারাজ এমাজন হয়ে যাবেন না! 

তাই হুট করে টাকা ঢেলে ই কমার্স করার আগে জানুন, লেখাপড়া করুন। 

Leave a Comment