পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের জাতীয় নিরাপত্তা গোয়েন্দা সংস্থার নামের তালিকা এবং বিস্তারিত। মোসাদ, সাভাক, সিআইএ, র, ডিজিএফাই

United Kingdom: SIS 

১৯০৯ সালে তৈরি হওয়া ব্রিটিশ গোয়েন্দা সংস্থা SIS যাকে MI6 নামেও ডাকা হয় তার যাত্রা শুরু হয়। প্রথম বিশ্বযুদ্ধে SIS বেশ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। মানুষ এখন MI6 নামেই বেশি চিনে। এই সংস্থার কাজ CIA এর মত। বাইরে দেশে অপারেশন পরিচালনা করা।  

United States: সিআইএ

সিআইএ এর নাম শুনেনি এমন মানুষ কমই পাওয়া যাবে। ডজন ডজন দেশের রাষ্ট্রপ্রধান কে হত্যা করা, গুম করা, পলিটিক্যাল নেতাদের ব্ল্যাকমেইল করে আমেরিকার জন্য সুবিধা আদায় করার মত হাজারো অপকর্মের সাথে সিআইএ জড়িত। 

সিআইএ এর ক্ষমতা কমানোর চেষ্টা করেছিলো আমেরিকার সাবেক প্রেসিডেন্ট জন এফ কেনেডি। অনেকের মতে কেনেডির মৃত্যুর পিছনে সিআইএ জড়িত বলে মনে করে। 

সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সি (ইংরেজি: Central Intelligence Agency) (CIA), যা সিআইএ নামেও পরিচিত, যুক্তরাষ্ট্রের কেন্দ্রীয় সরকারের আওতাধীন একটি বেসামরিক গোয়েন্দা সংস্থা।

এটি একটি স্বাধীন সংস্থা, যার দায়িত্ব যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা নিশ্চিত করা এবং উচ্চপদস্থ নীতিনির্ধারকদের কাছে গোয়েন্দা তথ্য সরবরাহ করা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধকালীন সময়ে গঠিত অফিস অফ স্ট্র্যাটেজিক সার্ভিসেস (OSS)-এর উত্তরসূরী হিসেবে সিআইএ’র জন্ম। এর কাজ ছিলো যুক্তরাষ্ট্র সামরিক বাহিনীর বিভিন্ন শাখা-প্রশাখার মধ্যে তথ্য আদান-প্রদান করা। ১৯৪৭ সালে অনুমোদিত হওয়া ন্যাশনাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট বা জাতীয় নিরাপত্তা আইনের মাধ্যমে সিআইএ গঠন করা হয়, যাতে বলা হয় ‘এটি কোনো পুলিশ বা আইন রক্ষাকারী প্রতিষ্ঠান নয়, দেশে কিংবা বিদেশে যেখানেই কাজ করুক না কেনো’।

সিআইএ’র প্রাথমিক কাজ হচ্ছে বিদেশি সরকার, সংস্থা ও ব্যক্তিদের সম্বন্ধে তথ্য সংগ্রহ করা এবং তা জাতীয় নীতিনির্ধারকদের কাছে তা সরবরাহ ও পরামর্শ প্রদান করা।

আফগানিস্তান এর গোয়েন্দা সংস্থাঃ এনডিএস ·

এনডিএস · মূলত আমেরিকার পুতুল সরকারের আমলের গোয়েন্দা সংস্থা। বর্তমানে তালে-বা*নের অধীনে কোন নামে তাদের গোয়েন্দা সংস্থা কাজ করছে আমি এখনো জানি না। জানলে জানাবো হইতো। 

 আলবেনিয়া এর গোয়েন্দা সংস্থাঃ এসএইচআইএসএইচ · 

আলবেনিয়া হলো ইউরোপের অন্যতম মুসলিম দেশ। ৯০ দশকে কমিউনিস্ট পতনের পর আলবেনিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা নাম পরিবর্তন করে SHISH নামে প্রকাশ পায়। 

আলবেনিয়ার প্রতিবেশি দেশ যেমন কসোভো, সার্বিয়া, মেকাডোনিয়া ইত্যাদি দেশ গুলোতে নজরদারি চালাতে এই সংস্থা বেশি ভুমিকা রাখে। 

বিশ্বের সকল গোয়েন্দা সংস্থা

আলজেরিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা: ডিআরএস

আলজেরিয়ার বিভিন্ন বিদ্রোহী গ্রুপের মধ্যে DRS গোয়েন্দা সংস্থা অনুপ্রবেশ করে গৃহ যুদ্ধ বাধানো, শান্তি আলোচনায় বাধা প্রদান করা, কৌশলে নিজেদের ক্ষমতা বৃদ্ধি ইত্যাদি নানা কারনে আলজেরিয়ার গোয়েন্দা সংস্থা DRS কে ২০১৬ সালে বাতিল করা হয়েছে।

বাংলাদেশ এর গোয়েন্দা সংস্থা – এনএসআই

বাংলাদেশের সামরিক গোয়েন্দা সংস্থা DGFI এর পরেই মূলত NSI অবস্থান করে। ২টার কাজ একই রকম হলেও কাজের মাঠ অফিসিয়াল ভাবে ভিন্ন। NSI দেশের অভ্যন্তরীণ রাজনৈতিক অবস্থা, নেতা পেতাদের নজরদারি করা, বিভিন্ন সংস্থার কাজ তদারকি করা এসব কাজে জড়িত।

বাংলাদেশের গোয়েন্দা সংস্থা NSI এর প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন সেনাবিহিনির একজন Two Star মেজর জেনারেল। বর্তমান ডিজির নাম জোবায়ের। 

 বেলারুশ: কেজিবি আরবি

বেলারুশ হলো পুতিনের রাশিয়ার আপন ভাইয়ের মত! রাশিয়া যা বলে যেদিকে যায় বেলারুশ ও সেদিকে যায়। এজন্য এদের গোয়েন্দা সংস্থার নাম ও রাশিয়ার পুরাতন কেজিবির নামের সাথে মিলে গেছে। 

 কানাডা: সিএসআইএস 

কানাডার সিক্রেট এজেন্সি সিএসআইএস এর যাত্রা শুরু হয় ১৯৮৪ সালে। সিএসআইএস এর হেড কোয়ার্টার  Ottawa, Ontario তে। ৩২০০০ এর বেশি লোক এই এজেন্সিতে কাজ করে থাকে। 

 চীন: এমএসএস

Ministry of State Security of the People’s Republic of China কে সংক্ষেপে MSS বলা হয়। MSS ই মূলত চাইনিজদের মূল গোয়েন্দা সংস্থা।  ১৯৮৩ সালে MSS এর কার্যক্রম শুরু হয়। ২০১৮ সালের হিসাবে চাইনিজ গোয়েন্দা সংস্থা MSS এর বাজেট ছিলো ৫৮+  বিলিয়ন চাইনিজ মুদ্রা। MSS কে পৃথিবীর অন্যতম গোপন গোয়েন্দা সংস্থা বলা হয়ে থাকে। 

Israel এর গোয়েন্দা সংস্থা : মোসাদ 

ইসরায়েল এর কুখ্যাত এবং অভার রেটেড গোয়েন্দা সংস্থা মোসাদ। ১৯৪৯ সালে জন্ম এই গোয়েন্দা সংস্থার বাজেট প্রায় ৩ বিলিয়ন ডলার। অনেক গুলো সফল মিশন কমপ্লিট করে বেশ নাম ডাক কামাতে সক্ষম হয়েছে মোসাদ।

অভার রেটেড বলেছি কারন মোসাদ যতটা না কাজ করে তার চাইতে একে বেশি ফুলিয়ে ফাপিয়ে প্রচার করা হয়ে থাকে। তাছাড়া মোসাদের অন্যতম তথ্য যোগানদাতা হলো আমেরিকা। আমেরিকার কাছ থেকে পাওয়া সুযোগ সুবিধা ছাড়া মোসাদ এর অনেক মিশন কমপ্লিট করা তো দূরের কথা বরং সেই দেশে প্রবেশ ই করতে পারতো না। 

বেশিরভাগ মোসাদ ইজ্রায়েলের বাইরের কোন দেশে অপারেশন চালাতে আমেরিকান পাসপোর্ট ইউজ করে!! 

তবে এটা সত্য মোসাদ হিংস্র। টর্চার করার জন্য এরা বিখ্যাত। 

 India: RAW – র

বাংলা ভাষী জনগনের জন্য ভারতের গোয়েন্দা সংস্থা র কে নতুন করে পরিচয় করার প্রয়োজন আছে কি? বলা হয়ে থাকে বাংলাদেশের মিডিয়া, রাজনীতি, শিক্ষা সবখানেই র এর নোংরা হাত থাকেই। স্কুলের বইয়ে ইসলামিক টপিক বাদ দিয়ে নাস্তিক/ সেকুলার টপিক অনুপ্রবেশ করানো, পদ্মা সেতুতে কিছুদিন পর পর ভারতের নাগরিক আটক হওয়া এসবের পিছনে যে র দায়ী এটা তো এখন ওপেন সিক্রেট! 

ভারতের সিক্রেট এজেন্সি র  এর জন্ম ১৯৬৮ সালে। ভারতের মতে র এর সবচাইতে সফল মিশন হলো ৭১ সালে পাকিস্তান কে ভাংতে পারা। মূলত ১০৭১ সালের যুদ্ধের বিশাল একটা অংশ র একাই খেলেছে।এদিক থেকে র কে সফল বলায় যায়। 

Pakistan: ISI

পৃথিবীর টপ ৪টা গোয়েন্দা সংস্থার মধ্যে পাকিস্তানের ISI একটি। পাকিস্তানের অর্থনীতি এবং সামরিক ক্ষমতার চেয়ে ওদের গোয়েন্দা সংস্থা ISI এর দক্ষতা ও ক্ষমতা বেশি। ঠিক কি কারনে এদের কে লিস্টের উপরের দিকে রাখা হয় তার নির্দিষ্ট কোন কারন আমি জানি না। হতে পারে পাকিস্তান আফগানিস্তান ও ভারতের সাথে পাল্টাপাল্টি খেলা খেলে খেলে এরা দক্ষতা অর্জন করেছে। 

কেননা দেখা যায় পাকিস্তানের ISI ডিপ পর্যায়ে খেলে বেশি। শত্রুকে শত্রু দিয়ে শেষ করে নিজেরা পল্টি মেরে কেটে পড়তে এরা অভিজ্ঞ! 

এত দক্ষতার পরেও অবশ্য পাকিস্তানের ভিতরে বেলুচিস্তান আন্দোলন দমাতে পারেনি!! 

১৯৪৮ সালে জন্ম নেওয়া ISI ৭১ সালে পাকিস্তান ভাঙ্গাও ঠেকাতে সক্ষম হয়নি উলটা ভারতের র এর কাছে পরাজিত হয়! 

Russia: SVR

রাশিয়ান গোয়েন্দা সংস্থা বলতে অনেকে এখনো কেজিবি কে বুঝে। তবে কেজিবি ভেঙ্গে গেছে আরো অনেক আগেই। সোভিয়েত আমলের কেজিবি এখন রাশিয়ান SVR। নাম পরিবর্তন করলেও SVR এর কাজ মূলত কেজিবির মতই। 

কেজিবি ভেঙ্গে ২টি সিক্রেট এজেন্সি  জন্ম নেয়। একটির নাম FSB আরেকটি হলো SVR। 

রাশিয়ার FSB কে আমেরিকার FBI এর সাথে তুলনা করতে পারেন। FBI এর কাজ হলো আমেরিকার ভিতরে নজরদারি করা আর CIA এর কাজ হলো আমেরিকার ভিতর ও বাইরে সবখানে নজরদারি চালানো। ঠিক একই রকম হলো রাশিয়ান FSB রাশিয়ার ভিতরে নজর রাখে এবং SVR বিদেশি রাষ্ট্র গুলোতে রাশিয়ার স্বার্থ রক্ষায় কাজ করে। 

 Saudi Arabia: GIP 

The General Intelligence Presidency (GIP) সৌদি আরবের প্রধান গোয়েন্দা সংস্থা। ১৯৫৫ সালে যাত্রা শুরু করা সৌদি সিক্রেট এজেন্সি GIP এর হেড কোয়ার্টার রিয়াদে। এবং এর প্রধান হিসাবে দায়িত্ব পালন করেন একজন লেফঃ জেনারেল অফিসার। 

কমিনিজন বিরোধী আন্দোলনে বিভিন্ন দেশে সৌদি গোয়েন্দা সংস্থা আমেরিকার CIA এর সাথে মিলে একসাথে কাজ করেছে। বিশেষ করে আফ্রিকা এবং আফগানে সোভিয়েত এর প্রভাব নষ্ট করতে। 

আরো ৬০টি দেশের নাম ও সেসব দেশের গোয়েন্দা সংস্থার নামের তালিকা

  1.  · Djibouti: BSRG
  2.  · Egypt: GIS 
  3. · France:DGSE
  4.  · Gambia: NIA
  5.  · Germany: BND 
  6. · Greece: EYP
  7.  · Hungary: IH
  8.  · Indonesia: BIN 
  9. · Iran: VEVAK
  10.  · Iraq: GSD
  11.  · Ireland: G2 
  12. · Italy: AISE 
  13. · Japan: PSIA 
  14. · Jordan: GID
  15.  · Kazakhstan: NSC
  16.  · Kyrgyzstan: SNB
  17.  · Kuwait: KSS
  18.  · Latvia: SAB 
  19. · Lithuania: VSD
  20.  · Lebanon: GDGS
  21.  · Libya: MJ
  22.  · Macedonia: DSCI 
  23. · Malaysia: KRD
  24.  · Maldives: NSS
  25.  · Mexico:CISEN
  26.  · Montenegro: ANB
  27.  · Morocco: DGST
  28.  · Mozambique: SISE
  29.  · Netherlands: AIVD
  30.  · New Zealand: EAB 
  31. · Nigeria: NIA 
  32.  · Papua New Guinea: NIO
  33.  · Philippines: NICA
  34.  · Poland: AW
  35.  · Portugal: SIED
  36.  · Qatar: QSS
  37.  · ROC: NSB 
  38. · Romania: SIE 
  39. · Serbia: BIA 
  40. · Sierra Leone: CISU 
  41. · Singapore: SID 
  42. · Slovakia:SIS 
  43. · Slovenia: SOVA 
  44. · Somalia:NSS
  45.  · South Africa: SASS 
  46. · South Korea: NIS
  47.  · Spain: CNI
  48.  · Sri Lanka: SIS 
  49. · Sudan: JAWM
  50.  · Switzerland: NDB
  51.  · Syria: GSD 
  52. · Tajikistan: MoS
  53.  · Togo: NIA 
  54. · Tunisia: TIA
  55.  · Turkey: MİT
  56.  · Turkmenistan: KNB 
  57. · Uganda: ISO 
  58. · Ukraine: SZRU
  59.  · United Arab Emirates: UAEI 
  60. · Uzbekistan: MHH

Scroll to Top