অনলাইনে নতুন ব্যবসার বিজনেসের স্মার্ট আইডিয়া এবং ফেসবুকে ব্যবসা করার নিয়ম

নতুন ব্যবসার আইডিয়া পেতে যদি আপনি এই পোস্ট পড়ে থাকেন তাহলে ঠিক জায়গাতেই এসেছেন। আজকে আমরা আপনার কাছে জানাবো কিভাবে ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা শুরু করা যায়। নানা রকম প্রোডাক্টের অনলাইন বিজনেস আইডিয়ার তালিকা এবং আরো কিছু টিপস।

আজকাল কেউ অন্যের উপর নির্ভরশীল হতে চায় না।নিজের ইচ্ছা শখ নিজে পূরণ করার জন্য আত্ন নির্ভশীল হতে চায়। সেক্ষেত্রে এখন ছেলে মেয়ে সবাই যে যার জায়গা থেকে এগিয়ে যাচ্ছে।

তবে মেয়েদের জন্য বাইরের সব পরিবেশ সব চাকরি নিরাপত্তার নয়।যার জন্য তারা মেধা আর ইচ্ছা থাকলেও কিছু করতে পারেনা।তবে এখন ঘরে বসেই অনেক টাকা ইনকাম করার নিজের পরিচিতি বৃদ্ধি করার দারুণ সুযোগ আছে।

আগেও মা চাচীরা গরে বসে বিভিন্ন ধরনের হাতের কাজ,খামার, শাক সবজি চাষ করে উর্পাজন করেছেন কিন্তু বর্তমানে সুযোগ সুবিধা দিয়ে তা আজ কয়েকগুণ উপরে৷।এখন ঘরে ঘরে মেয়েরা অনলাইন বিজনেসের প্রতি আগ্রহী হচ্ছে। এমনকি বিজনেস করে সফল হচ্ছে। অন্যরা অনলাইনে বিজনেস করে সফল হচ্ছে তার মানে এই না আপনিও টুপ করে অনলাইন বিজনেস শুরু করে সফল হতে পারবেন।


অবশ্যই অনলাইন বিজনেস করার আগে আপনার কিছু বিষয়ে সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে হবে।সঠিক সিদ্ধান্ত না নিয়ে অনলাইন বিজনেস শুরু করা বোকামি হবে।

ঘরে বসে ফেসবুকে ব্যবসা

অনলাইন বিজনেস করার আগে করনীয়

অনলাইনে বিজনেস করার আগে আপনার ভালো ভাবে চিন্তা করে বের করতে হবে আপনি কোন বিষয়ে বেশি পারদর্শী বা কোন বিষয়ে আপনার ধারণা ভালো কোন বিষয় নিয়ে কাজ করতে আপনি সাচ্ছন্দ্যবোধ করবেন।


নাহলে আপনি অন্য কে কি নিয়ে বিজনেস করে সফল সেটা দেখে যদি সেই জিনিস নিয়ে কাজ করতে নেমে পরেন কিন্তু জিনিস টা সম্পর্কে আপনার কোন ধারণাই নেই তাহলে আপনি সেই বিজনেস বেশি দূর নিতে পারবেন না।তাই আপনি যে কাজে দক্ষ সে কাজ নিয়ে শুরু করতে পারেন।

আপনার পণ্য কিভাবে কাষ্টমারের কাছে পৌঁছে দিবেন মানে ডেলিভারি সার্ভিস ঠিক করবেন।আপনার পণ্য ভালো কিন্তু কাস্টমারের হাতে আপনি পণ্য সঠিক সময়ে পৌঁছে দিতে পারলেন না তাহলেও আপনার বিজনেস বেশি দূর নিতে পারবেন না তাই ডেলিভারির ব্যাপার টা আগে রেডি করে বিজনেস শুরু করবেন।


অনলাইন বিজনেসের ক্ষেত্রে কিছু ইউনিক কিছু নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করবেন বা একটা সিগনেচার আইটেম রাখার চেষ্টা করবেন যেটা কাস্টমার কে আকৃষ্ট করবে৷

আপনি যদি ভালো হাতের কাজ পারেন,সেলাই পারেন,ভালো রান্না পারেন,বেকিং পারেন তাহলে সেটা দিয়েই শুরু করতে পারেন। আর যদি বিশেষ কোন কাজ নিজে না পারেন তাহলেও সমস্যা নেই ভালো কোন পণ্য নির্বাচন করে সাপ্লায়ার থেকে নিয়ে বিজনেস শুরু করতে পারেন।


অবশ্যই এমন জিনিস নিয়ে কাজ করবেন যে জিনিস সম্পর্কে আপনি জানেন যার ভালো কোয়ালিটি আপনি যাচাই করে কাস্টমারের হাতে দিতে পারবেন।আপনি যদি নিজেই না জানেন তাহলে আপনি এর গুণগত মান বাছাই করতেও ব্যর্থ হবেন।

অনলাইন ব্যবসা বা বিজনেসের আইডিয়া

আশা করি অনলাইনে কি নিয়ে বিজনেস করবেন সে সম্পর্কে ভালো ধারণা পাবেন।

ঘরোয়া ব্যবসা – হাতের কাজ

আপনি যদি হাতের কাজ জানেন তাহলে হাতের কাজ দিয়ে শুরু করতে পারেন।হাতের কাজের বিভিন্ন ধরনের থ্রিপিস,ওয়ান পিস,টু পিস,পান্জাবি,ফতুয়া তৈরি করে সেল করতে পারেন আবার বিভিন্ন ধরনের নকশী কাঁথা নিয়ে কাজ করতে পারেন।

অল্প পুঁজি দিয়েই আপনি এই কাজ করতে পারবেন।
বিভিন্ন হাতের কাজের ডিজাইনের স্যাম্পল কাস্টমার কে দেখিয়ে অর্ডার নিয়ে সেটা কমপ্লিট করে দিতে পারেন।কাস্টমাইজড কাজের খুব চাহিদা। কাস্টমারের পছন্দ অনুযায়ী ডিজাইন কাস্টমাইজড করে সেলাই করে দিতে পারেন।

সেলাইয়ের কাজ

যারা দর্জি কাজে পারদর্শী তারা কিন্তু অনলাইনে দর্জি কাজের সার্ভস দিতে পারেন।মেয়েরা ভালো দর্জির সন্ধান চায় তাদের পছন্দ মতো পোশাক তৈরি করে দিতে পারলে বার বার তারা আপনার কাছেই আসবে রিপিট কাষ্টমার হবে।


বিভিন্ন ডিজাইনের ব্লাউজ, জামা,গাউন,সেলোয়ার,কুর্তি তৈরি করতে পারলে আপনি অনলাইনে এটা নিয়ে কাজ করতে পারেন।

নারীদের জন্য অনলাইন ব্যবসা – হোম মেইড খবার

যাদের রান্না ভালো বাসায় সবার কাছে রান্নার প্রশংসায় পঞ্চমুখ তারা কিন্তু হোম মেইড খাবার নিয়ে কাজ করতে পারেন।হোম মেইড খাবারের এখন অনেক বেশি চাহিদা। কম বেশি সবাই এখন বাইরের খাবারের টেস্ট নিতে চায়।


আবার অনলাইনে খাবার অর্ডার করার এতো সুন্দর সুযোগ সুবিধা যে সবাই ঘরে বসেই বিভিন্ন ধরনের খাবার ট্রাই করতে পছন্দ করেন। তবে প্রোফেশনাল ভাবে কাজ করার জন্য কিছু রান্নার কোর্স কমপ্লিট করে নিতে পারলে কাজের গতি বাড়বে।

অনলাইনে আচারের ব্যবসা আইডিয়া

অনেক ভুল সংশোধন করা যাবে।যেহেতু সবার বাথ টেস্ট এক না।আর খবার নিয়ে কাজ করলে অনেক বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে।খাবার ফ্রেশ থাকতে হবে।পরিবেশন সুন্দর করে করতে হবে আর প্যাকেজিং টা মান সম্মত রাখতে হবে।

আচার

আচার পছন্দ করে না এমন মানুষ কম।ছেলে মেয়ে কম বেশি পছন্দ করে।বিশেষ করে ছুটির দিনে বা খিচুড়ি, বিরিয়ানি যেদিন রান্না করা হয় সেদিন প্লেটে একটু আচার সবাই চাই।


আর এখন তো সব জিনিস দিয়ে বাহারি রকম মুখরোচক আচার পাওয়া যায়। আর কর্মব্যস্ত জীবনে সবার সময় হয়ে ওঠে না ঝামেলা করে বিভিন্ন রকম আচার তৈরি করার আবার সবাই সব রকম আচার তৈরি করতে পারেনা।তাই তো আচার তৈরি করে আজ অনেক উদ্দোক্তা সফল।

থ্রিপিস

থ্রিপিস নিয়েও অনলাইন বিজনেস শুরু করতে পারেন। তবে কাপড় নিয়ে কাজ করতে হলে কাপড় কোয়ালিটি সম্পর্কে একটু ধারণা রাখার চেষ্টা করবেন।


যেটা কটন বলে সেল করবেন তা যেন পিওর কটন থাকে।মিক্স না হয়।নাহলে হিতে বিপরীত হবে।কাপড় আনলাম আর সেল করলাম এমনটা করা যাবে না।


অনলাইনে নিত্য নতুন ড্রেসের ট্রেন্ড চালু হয় তাই কাস্টমারদের চাহিদা অনুযায়ী কোয়ালিটি ভালো রেখে থ্রিপিস বাছাই করে নিবেন।

শাড়ি

শাড়ি নিয়েও অনলাইন বিজনেস শুরু করতে পারেন। ফেসবুকে এমন অনেক শাড়ির পেজ আছে যারা সফলতার সাথে বিজনেস করে যাচ্ছে।


মেয়েরা তো শাড়ি পরতে খুব পছন্দ করে।বাজেটের ভিতর সুন্দর সুন্দর সুতি শাড়ি,টাঙ্গাইলের শাড়ি,সিল্ক শাড়ি,কাতান শাড়ি দিয়ে বিজনেস শুরু করতে পারেন।

অনলাইনে কাপড়ের ব্যবসা করবো

বোরকা

মেয়েদের বিভিন্ন পোশাকের সাথে সাথে বর্তমানে বোরকার চাহিদাও অনেক।বোরকা নিয়ে কাজ করলেও ভালো সাড়া পাওয়া যাবে। কাস্টমাইজড বোরকা নিয়ে কাজ করতে পারলে আরো ভালো সাড়া পাবেন আশা করি।


বোরকার সাথে সাথে পর্দার প্রোয়জনীয় বিভিন্ন জিনিস যেমন হুডি নেকাব,নোজ নেকাব,হাত মোজা,পা মোজা এগুলোও সাথে রাখতে পারেন।

জুয়েলারি

মেয়েদের গহনার প্রতি আলাদা একটা আর্কষণ কাজ করে। মেয়েদের বিভিন্ন ধরনের গহনা নিয়েও কাজ করতে পারেন। গোল্ড প্লেট,এন্টিক,ফুলের গহনা,স্টনের গহনা বিভিন্ন ধরনের গহনা নিয়ে অনলাইন বিজনেস শুরু করতে পারেন।

কসমেটিক

ফেসবুকে ব্যবসা

রুপচর্চা করার জন্য বিভিন্ন ধরনের প্রোডাক্ট দরকার হয়।আপনি যদি অথেন্টিক প্রোডাক্ট দিতে পারেন তাহলে খুব সহজেই বিজনেস দাড় করাতে পারবেন।


কসমেটিক আইটেম গুলো যখন কাস্টমার অথেন্টিক পাবে এবং তারা উপকার পাবে তখন আপনার পেজ তাদের জন্য হবে আস্থার জায়গা। কারণ স্কিনের বিষয়ে খুব সেনসেটিভ।

হোম রেমেডি প্রোডাক্ট

হোম মেড বিজনেস

বর্তমানে বিভিন্ন ট্রেনিং এর মাধ্যমে মেয়েদের স্বাবলম্বী করা হচ্ছে। আপনি কয়েকটি ট্রেনিং এর মাধ্যমে কাজ শিখে নিজে বাসায় ঘরোয়া ভাবে হোম রেমেডি আইটেম নিয়ে কাজ করতে পারেন।

মাটির বাসন

অনলাইনে কিন্তু ইউনিক জিনিসের চাহিদা বেশি যেটা মার্কেটে সচারাচর পাওয়া যায় না আবার অনলাইনেও তেমন খুব বেশি হরহামেশা পেজ পাওয়া যায় না তেমন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করলে দ্রুত এগোনোর সম্ভবনা থাকে।


তার ভিতর হলো মাটির বাসন পত্র, শোপিস।মাটির থালাবাসনের এখন প্রচুর চাহিদা। অনেকে সখের বসে মাটির থালাবাসনের ডিনার সেট সংগ্রহ করেন।


মাটির তৈরি বিভিন্ন ফুলদানি,শোপিস।আর মাটির হাড়িতে রান্নাও তো এখন অনেকে পছন্দ করেন তার ভিতর হান্ডি বিরিয়ানি, হান্ডি বিফ,হান্ডি মাটন।মাটির তৈরি চায়ের কাপ গুলোও অনেক জনপ্রিয়।

আর্টিফেশিয়াল ফুল

ঘর সাজাতে কেনা পছন্দ করে। আর বর্তমানে মানুষ একটু সৌখিন বেশি।যেমন ভাবে থাকুক একটু সুন্দর পরিবেশে গোছানো থাকতে পছন্দ করে।


মেয়েরা তো তাদের ঘর সাজাতে বিভিন্ন ধরনের আর্টিফেশিয়াল ফুল, গাছ ব্যবহার করে থাকে।তাই আপনি চাইলে আর্টিফেশিয়াল ফুল আর গাছ নিয়ে কাজ করতে পারেন।

হোম ডেকোরেট প্রোডাক্ট

বিভিন্ন ধরনের ইউনিক সব হোম ডেকোরেট আইটেম নিয়েও অনলাইন বিজনেস শুরু করতে পারেন। ওয়াল হ্যাঙ্গিং,কর্নার,দোলনা,ঝারবাতি,ওয়াল স্টিকার,কিচের সেল্ফ।

চায়না আইটেম


বর্তমানে চায়না প্রোডাক্টের প্রচুর চাহিদা। আপনার পুঁজি বেশি থাকলে আপনি চায়না থেকে সরাসরি ইর্ম্পোট করে হোলসেল বিজনেস করতে পারেন।


আবার অল্প পুঁজি দিয়ে রিটেইলেও কেনাবেচা করতে পারেন। পণ্যের চাহিদা বুঝে স্টক করলে চায়না প্রোডাক্টে খুব সহজে সাড়া পাবেন।

স্টেশনারি

আজকাল বাজার করতেও ঘরের বাইরে যেতে হয়না কিংবা বাজারের ভীড়ে সময় নষ্ট করতে হয়না।মানুষ এখন সময় বাচাতে, কষ্ট কমাতে ঘরে বসে শপিং করার পাশাপাশি বাজার সদাইও করে থাকেন।আপনি চাইলে মুদি পণ্য, স্টেশনারি আইটেম নিয়ে কাজ করতে পারেন।

নার্সারি

গাছ প্রেমি মানুষরা সুযোগ পেলেই গাছ কেনে।গাছ কেনা তাদের নেশাতে রুপ নেয়। অনলাইনেও বিভিন্ন ধরনের গাছের পরিচর্চা, গাছ প্রেমিদের গ্রুপ রয়েছে।


এজন্য অনলাইনে গাছ কেনাকাটারও চাহিদা এখন দিন দিন বেড়ে যাচ্ছে। ইন্ডোর প্লান্টের চাহিদা এখন অনেক বেশি। সবাই এখন ঘর সাজাতে কম বেশি ইন্ডোর প্লান্ট রাখতে পছন্দ করেন।আবার গাছের পাশাপাশি গাছের জন্য তৈরি মাটি,সার, বিভিন্ন ডিজাইনের টব নিয়েও কাজ করতে পারেন।

টুরিস্ট গাইড

ঘুরতে কে না পছন্দ করে। কিন্তু বাজেটের কথা চিন্তা করে, নিরাপত্তার কথা চিন্তা করে আবার জায়গা না চেনার জন্য অনেকের ঘুরতে যাওয়া হয়না।


এখন বিভিন্ন টুরিস্ট এজেন্সি অনলাইনে তাদের সার্ভিস দিয়ে আসছে।আপনি যদি বিভিন্ন ট্যুরের ব্যাপারে অভিজ্ঞ থাকেন তাহলে একটা ট্যুরিস্ট টিম গঠন করে প্রয়োজনীয় কাগজ পত্র ঠিক করে টুরিস্ট গাইড হিসেবে অনলাইন সেবা দিতে পারেন।

মেয়েদের আন্ডার আইটেম ( নারীদের জন্য)


এখন অনেকেই ঘরে বসে ব্রা আন্ডার ওয়্যার অর্ডার করছে। অনলাইনে বিক্রেতা একজন নারী আবার ক্রেতাও নারী তাই এসব কেনার ব্যাপারে তাদের কোন সমস্যা হচ্ছে না। নারীদের জন্য নারীদের এমন প্রোডাক্ট নিয়ে কাজ করা ভালো একটা সুযোগ হতে পারে।

বই-পুস্তক

অনলাইনে এখন সব ধরনের বিজনেসের পাশাপাশি লাইব্রেরিরও বিজনেস চালু আছে।আপনি চাইলে অনলাইনে বইয়ের পেজ খুলে আপনার বিজনেস শুরু করতে পারেন।


পাঠ্য পুস্তক থেকে শুরু করে ইসলামিক বই,গল্প,উপন্যাস সব ধরনের বইয়ের কালেকশন পাঠকের চাহিদা অনুযায়ী রাখতে পারেন।


শেষ কথাঃ অনলাইন বিজনেস শুরু করার আগে অবশ্যই আপনি কোন পণ্য নিয়ে কাজ করতে চান তার বাজার চাহিদা কেমন,সেই পণ্য সম্পর্কে আপনার ধারণা কেমন,বিজনেস শুরু করতে কেমন পুঁজি প্রোয়জন তা যাচাই বাছাই করে নিবেন। তাহলে লাভের পরবরর্তে লস হতে পারে।


আর অনলাইন বিজনেস শুরু করে সেল করলেই হবেনা। সঠিক সময়ে সঠিক পণ্য কাস্টমারের হাতে তুলে দেওয়ার ব্যবস্থাও করতে হবে।
লেখকঃ রেশমি শারমিন

বোনাসঃ অনলাইনে বিশেষ করে ফেসবুক ভিত্তিক ছোট বিজনেস শুরু করতে চাইলে এবং পেজ খোলা গ্রুপ খোলা, এগুলো সাজানো, লোগো তৈরি করা কভার পিক তৈরি করা সহ ছোট বড় সব ধরনের সার্ভিস পেতে আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।মাত্র ৩০০ থেকে ৫০০ টাকার মধ্যে সার্ভিস পাবেন যা অন্যদের তুলনায় বেশ হাতের নাগালে।


আর কিভাবে বিজনেস শুরু করবেন, কোথায় থেকে প্রোডাক্ট পাবেন, কোথায় কিভাবে ডেলভারি দিবেন এসব সম্পর্কে জানতে আমাদের কোর্সে জয়েন হতে পারেন। কোর্স ফি ৩০০টাকা।যোগাযোগঃ ExaByte Bangladesh

  • নতুন ব্যবসার আইডিয়া
  • অনলাইন বিজনেস আইডিয়া
  • ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা
  • স্মার্ট ব্যবসা আইডিয়া
  • অনলাইন ব্যবসা
  • অনলাইনে ব্যবসা করার নিয়ম
  • গ্রামে অনলাইন ব্যবসা
  • বিজনেস আইডিয়া বাংলা
  • ব্যবসা করার নিয়ম
  • ঘরোয়া ব্যবসা
  • ব্যবসার আইডিয়া
  1. বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা
  2. অনলাইনে কি ব্যবসা করা যায়
  3. অনলাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়
  4. রিসেলার ব্যবসা
  5. ঘরে বসে ব্যবসা করার উপায়
  6. স্মার্ট ব্যবসা আইডিয়া
  7. অনলাইন ব্যবসা
  8. অনলাইনে ব্যবসা করার নিয়ম
  9. গ্রামে অনলাইন ব্যবসা
  10. বিজনেস আইডিয়া বাংলা
  11. ব্যবসা করার নিয়ম

ঘরোয়া ব্যবসা করার জন্য অনলাইন বা ফেসবুক হলো অন্যতম একটু পথ। আপনি ঘরে বসে পণ্য আনবেন, অর্ডার নিবেন আবার ঘরে বসেই বিক্রি করবেন। এমন কিছু ব্যবসার আইডিয়া যা বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা গুলোর মধ্যে একটি তা হলো রিসেলার ব্যবসা। আরেকজনের প্রোডাক্ট আপনি সেল করে দিবেন আর লাভ পকেটে ভরবেন।

ঘরে বসে ব্যবসা করার আরেকটি উপায় হলো সার্ভিস দেওয়া। অর্থাৎ আপনি কোন পণ্য বিক্রি করবেন না বরং যারা বিজনেস করে তারা আপনার থেকে সার্ভিস নিবে। সেই সার্ভিস হতে পারে কোন কিছু ডিজাইন করা, ভিডিও বানানো কিংবা পেইড এড দেওয়া ইত্যাদি।

অনলাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়?

আপনি কোন প্লাটফরমে ব্যবসা করতে চাচ্ছেন সেটা আগে বুঝে নিন। আপনার প্রোডাক্টের ক্রেতা যদি ফেসবুকে থাকে তাহলে আপনি ফেসবুকে শুরু করেন।

একটা পেজ একটা গ্রুপ কিংবা জাস্ট একটা আইডি দিয়েও শুরু করতে পারেন ফেসবুক বিজনেস। আপনার নিজের কোন পণ্য না থাকলে আপনি রিসেলার ব্যবসা করতে পারেন।

অনলাইনে কি ব্যবসা করা যায়?

অনলাইনে ব্যবসার পথ অনেক। তবে বাইরে যেমন শোনা যায় অনলাইন মানেই টাকা আর টাকা বাস্তবে কিন্তু এমন না। অনলাইনে বিজনেস করাও কঠিন। সবাই এখানে সফল হতে পারে না। আপনি সফল হতে চাইলে আপনার মেধা শ্রম আর ধৈর্য লাগবে সাথে সময়।

  1. নতুন ব্যবসার আইডিয়া
  2. অনলাইন বিজনেস আইডিয়া
  3. ফেসবুকে অনলাইন ব্যবসা
  4. স্মার্ট ব্যবসা আইডিয়া
  5. অনলাইন ব্যবসা
  6. অনলাইনে ব্যবসা করার নিয়ম
  • গ্রামে অনলাইন ব্যবসা
  • বিজনেস আইডিয়া বাংলা
  • ব্যবসা করার নিয়ম
  • ঘরোয়া ব্যবসা
  • ব্যবসার আইডিয়া
  1. বর্তমানে সবচেয়ে লাভজনক ব্যবসা
  2. অনলাইনে কি ব্যবসা করা যায়
  3. অনলাইন ব্যবসা কিভাবে শুরু করা যায়
  4. রিসেলার ব্যবসা
  5. ঘরে বসে ব্যবসা করার উপায়

Scroll to Top